সেতুর অভাবে চরম দুর্ভোগে কাটে লংগদু উপজেলা জনসাধারণের

প্রতিনিধি, লংগদু (রাঙামাটি): একটি সেতুর অভাবে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার ৪ ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তারা অবিলম্বে মাইনী নদীর উপর সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।
লংগদুর একদিকে ৬নং মাইনীমূখ ইউনিয়ন ও অন্যদিকে গুলশাখালী, বগাচতর ও ভাসান্যাদম ইউনিয়নের সাথে যুক্ত মাইনী ইউনিয়নের আওতাধীন ২টি ওয়ার্ডের মধ্যে মাইনী নদী অবস্থিত। সেতু না থাকায় ছোট নৌকায় করে দৈনিক হাজার হাজার মানুষ নদী পার হন। এতে ভোগান্তির পাশাপাশি প্রায়ই ঘটে ছোট খাটো দুর্ঘটনা। তাছাড়া নেতিবাচক প্রভাব পড়ে এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্যে।
স্থানীয়রা জানান, নদীর একপাড়ে বগাচতর, গুলশাখালী, ভাসান্যাদম ও মাইনী ইউনিয়নের ২টি ওয়ার্ড অবস্থিত এবং অন্যপাড়ে উপজোর প্রাণকেন্দ্র বৃহত্তর মাইনী বাজার, সদর ও শহরগামী যানবাহন স্টেশন। এছাড়াও রয়েছে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, হাসপাতাল ও বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। হাজারো মানুষ নিত্য প্রয়োজনে এই নদী পারাপার করে থাকেন। শুষ্ক মৌসুমে নদীটি প্রায় শুকিয়ে গেলেও বর্ষা মৌসুমে কানায় কানায় পানিতে ভর্তি থাকে। এ সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষজন নদী পারাপার করেন। বছরের পর বছর এ অবস্থা চললেও এই দুর্ভোগ লাঘবে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না।
মাইনী ইউনিয়নের জারুল বাগান গ্রামের রহমত আলী বলেন, মাইনী নদীর ওপর একটি সেতু নির্মাণ হলে উপজেলার এই ৪ ইউনিয়নের অবিচ্ছিন্ন অর্ধশতাধিক গ্রামের মানুষ উপকৃত হতো। বর্ষা মৌসুমে ঝুঁকি নিয়ে আমাদের নদী পার হতে হয়। তাছাড়া উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগের পথও অনেক সহজ ও সুগম হতো এই সেতু নির্মাণ করা হলে। পাশাপাশি পুরো উপজেলার মধ্যে সেতুবন্ধন রচনা হতো। আমরা মাইনী নদীর উপর একটি সেতু চাই।
স্থানীয় বাসিন্দা খলিল মিয়া বলেন, আমাদের দুঃখ দেখার কেউই নেই! প্রতিনিয়ত এই নদী দিয়ে স্কুল কলেজ পড়ুয়া, বিভিন্ন পেশায় কর্মব্যস্ত মানুষ ও ব্যবসায়ীরা অনেক দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। সরকার, উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে আমাদের প্রাণের চাওয়া জরুরি ভিত্তিতে মাইনী নদীতে একটি সেতু নির্মাণ করলে আমাদের এলাকাবাসীর দুর্ভোগ অনেক লাঘব হবে। সুমন মিয়া বলেন, আমি মুদি দোকানি। বাজারে সকাল ও রাতে যাতায়াত করতে অনেক সমস্যা হয়। প্রায় সময় ঘাটে নৌকা বোট থাকে না, তাই যথা সময়ে দোকানে আসা যাওয়া করা কষ্টের হয়। সেতু না থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে আমাদের।
এ প্রসঙ্গে লংগদু উপজেলার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা বলেন, মাইনী নদীর উপর সেতু নির্মাণের জন্য ৭-৮ মাস আগে আমাদের পক্ষ থেকে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে সেতু নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নজর দিয়েছে। আশা করি খুব দ্রুত এর সমাধান হবে এবং এই সেতুটি নির্মাণ হলে পুরো উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের মানুষের উপকার হবে।
অন্যধারা/সাগর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here